নিজের বাড়ি তৈরি

 

 

 

জীবনভর কাজ করার পর একজন বয়স্ক ছুতার অবসর নিতে প্রস্তুত। তিনি তার নিয়োগকর্তা-ঠিকাদারকে জানালেন যে, তিনি তার স্ত্রী ছেলে মেয়ে আর নাতি পুতি দের সাথে অবসর জীবনযাপন করতে চান। তিনি আরো বললেন যে, তিনি প্রতি সপ্তাহে যে বেতন চেক পেতেন সেটা মিস করবেন, একটু আসুবিধা হবে কিন্তু তবুও তিনি অবসর নিতে বদ্ধপরিকর।

ঠিকাদার তার একজন দক্ষ ও পুরনো কর্মীকে যেতে দেখে দুঃখিত হয়ে জিজ্ঞাসা করলেন যে, ছুতারমিস্ত্রী তার শেষ আনুরোধ রক্ষার্থে শেষ একটি বাড়ি তৈরি করতে দিতে পারেন কিনা?   

অগত্যা ছুতার হ্যাঁ বলে কাজ শুরু করলো, কিন্তু সময়ের সাথে সাথে সে সহজেই উপলব্ধি করলো যে তার হৃদয় তার কাজে মদ্ধে নেই। ছুতার তার শেষ কাজটি মন দিয়েও করলো না আর ভাল উপকরন ও ব্যবহার করলো না। পরিতাপের বিষয় যে ‘তার মত একজন দক্ষ কারিগর এমন একটি যেনতেন কাজের মাধ্যমে দুর্ভাগ্যজনক ভাবে তার কেরিয়ারটি শেষ করলো’।

ছুতারমিস্ত্রী কাজ শেষ করার পরে, তার নিয়োগকর্তা বাড়িটি পরিদর্শন করতে আসলেন। তারপরে তিনি বাড়ির মূল দরজার চাবিটি ছুতারের হাতে দিয়ে বললেন, “এটি তোমার বাড়ি … আমার পক্ষ থেকে তোমাকে আমার উপহার।”

ছুতার চমকে উঠলো!

কি দুর্ভাগ্য! যদি সে জানতো যে সে তাঁর নিজের জন্য বাড়িটি তৈরি করছে তাহলে সে আরো অনেক সুন্দর ভাবে এটি তিরি করতো।  

আমরা প্রতিদিন একটু একটু আমাদের জীবন রুপ বাড়ি গড়ে তুলি, কিন্তু তাতে আমরা আমাদের পুরো আন্তরিকতা দেখাই না। তারপরে ভাগ্যের কি পরিহাস যে ওই খারাপ ভাবে নিজের তৈরি বাড়িতেই আমাদের থাকতে হয়।

কিন্তু, দুঃখের বিষয় আপনি আর শুরুতে ফিরে যেতে পারবেন না। আপনিই সেই ছুতারমিস্ত্রী এবং প্রতিদিন আপনি হাতুড়ি দিয়ে পেরেক ঠুকছেন, বোর্ড স্থাপন করছেন, বা একটি প্রাচীর খাড়া করছেন।

কেউ একবার বলেছিলেন, “জীবন একটি নিজের তৈরি করা বাড়ি, আপনি আজ এবং এখন যে মনোভাব পোষণ করবেন তা আপনার নিজের আগামীকালের “বাসস্থান” তৈরি করতে সহায়ক হবে।  

অতএব, বুদ্ধিমানভাবে তা নির্মাণ করুন!

Category: Bangla, Moral Stories

Write a comment