মৃত্যুর পর আপনি নিজেকে কিভাবে মনে রাখতে পছন্দ করবেন?  

(সংকলিত)

 

 

 

ঘটনাটি প্রায় একশত বছর আগের। একজন লোক প্রাতরাশ করার পর সংবাদপত্রের দিকে চোখ বুলাতে গিয়ে আঁতকে উঠলেন- **তার নাম মৃত্যু সংবাদের কলামে লেখা হয়েছে!**

ঘটনাক্রমে সংবাদপত্রটি ভুল করে ভুল ব্যক্তির মৃত্যুর খবর ছাপিয়েছে।

-আমি কী সত্যিই বেচে আছি? লোকটি নিজের শরীরে চিমটি কেটে নিশ্চিত হলেন। ভুল সংবাদটি লোকটিকে দারুন ভাবে নাড়া দিল এবং তিনি কিছুটা অপ্রকিতিস্থ হয়ে পড়লেন।

নিজেকে সামলে নিয়ে যখন স্বাভাবিক হলেন তখন তিনি জানতে উৎসুক হয়ে উঠলেন যে তার মৃত্যুতে কে কি মন্তব্য করেছে।

“ডায়নামাইট কিং মারা গিয়েছে” মৃত্যু সংবাদে লেখা। এবং আরো লেখা ছিল “তিনিই ছিলেন মৃত্যুর বণিক।”

লোকটি প্রকৃতই ডায়নামাইটের আবিষ্কারক ছিলেন। এবং যখন তিনি  “মৃত্যুর  বণিক” শব্দটি পড়লেন তখন তিনি নিজেকে একটি প্রশ্ন করেছিলেন,”এইভাবেই কি মৃত্যুর পর আমাকে স্মরণে রাখা হবে?”

এই সদ্যপ্রাপ্ত অনুভূতি তার মনে গেঁথে রইল এবং তিনি সিদ্ধান্ত নিলেন যে মৃত্যুর পর লোকে তাকে এভাবে স্মরণ করুক তিনি তা চান না। সেদিন থেকে তিনি শান্তির জন্য কাজ করতে শুরু করলেন। তাঁর নাম আলফ্রেড নোবেল এবং তাকে আজ মহান নোবেল পুরস্কারের প্রনেতা হিসাবে স্মরণ করা হয়।

সেদিন আলফ্রেড নোবেল যেমন তার অনুভূতির সংস্পর্শে এসে তাঁর মূল্যবোধকে নতুনভাবে সংজ্ঞাইত করেছিলেন, আমাদেরকেও তেমনি ভাবে ভাবা উচিত।

আপনি কি উত্তরাধিকার রেখে যেতে চান?

মৃত্যুর পর আপনি নিজেকে কিভাবে মনে রাখতে পছন্দ করবেন?

মৃত্যুর পর আপনার সম্পর্কে কি ভাল কথা বলা হবে?

মৃত্যুর পর আপনাকে কি ভালোবাসা ও শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করবে?

মৃত্যুর পর আপনাকে কি সবাই মিস করবে?

Category: Bangla, Moral Stories

Write a comment