পর্বত শৃঙ্গ থেকে একে বেকে, চল তুমি বয়ে উতলা হয়ে।
কখনো খপ্পা খরস্রোতা, ভেঙ্গে চুরে দাও সামনে আসে যা।
আবার কখনো শান্ত যেন ক্লান্ত, গতি মন্থর
যেন কান পেতে শোনা, দুপাড়ের হাসি কান্না, দিয়ে অন্তর।

শোন মোর কথা, ছুটো না শুধু বৃথা
ক্ষ্যন্ত দাও ক্ষনেকের জন্য।
বল কোথায় সে দেশ, কবে হবে এ চলার শেষ
পেরিয়ে উচু নীচু পর্বত অরণ্য?

তোমার এত চলা, এত বলা, এত বল, এত কান্ড অতল
জানি শুধু হেসে সব ফেলে শেষে
যাবে তুমি ফিরে নিজ ঘরে অবশেষে।

চাও তুমি যেতে, জানি শুধু পেতে
সে মায়ের কোল, হোক তা উষ্ণ বা শীতল!

জীবন প্রবাহ নিখাদ একই সুর একই স্বাদ
সবই অভিন্ন এক, কেবল পাত্র পৃথক।

যা দরকার, কর সব কিছু তার, শুধু করিতে তুষ্ট আমার
তাইতো এত আয়োজন শত, এত সব মাতন।
তবে নিজ বুকে রাখ কান, বন্দ হোক বাহিরের সব ধ্যান জ্ঞান
যদি জানতে চাও আমার যাতন।

মহাকাশ ছেদী, মহাকাল ভেদী, একই আকাঙ্খা একই আকুতী
কবে যাব ফিরে, আপনার ঘরে, যেখানে আমার উৎপত্তি।

দাও যেতে মোরে, রূখিওনা ওরে
জীবিকার ছলে যা তুমি দিলে, সব তার বাধে শক্ত শেকলে।
কেন যে বোঝনা, আমার এ যাতনা
আমি তো এসেছি চলে যাব বলে।

প্রতিক্ষন তব প্রতি করেছি আকুতী, ভেদিয়া আকাশ মর্ত্য
আমি যা পায়, সবি তার ছেড়ে যেতে চায়
এ খাচায় নই আমি আসক্ত।

Category: Meaning of Life

Write a comment