কে বলেছে মৃত আমি, নেই ক্ষমতা কোন
এই দেখ না নড়ছি আমি, নিজের জোরে জেনো।

মাথায় পরা টুপি আমার, গায়ে নতুন কটি
পা দুটো ঢাকাই থাকে, সেগুলো কেউ না দেখে
আমি তো যে পরের খেয়ে পরের পায়ে ছুটি।

চাকরি করা কাকতাড়ুয়া পায় যে সে মাসহারা
জমিও না তার, না ফসল সারা।
কাক পাখীরা মিছে সবাই ভয়ে পালাই
যদিও না আছে তার শক্তির বালাই।

বোকা ওরা ভিতুর সেরা,
জমিদারের গোলা, তায়তো থাকে সারা বেলা, ধানে ভরা।

কাকতাড়ুয়া পাখি তাড়ায়, মালিকই তার শক্তি যোগায়
সময় গেলেই কাঠামো টা বদলিয়ে দেয়।
মালিক যত সময় মত, জামা টুপি বদল করে
যাতে দেখতে লাগে আসল মানুষ, কাক পাখি যেন পালায় ডরে।

বিশ্ব ভরে শত আকারে, নানা সাজে নানা কাজে
আমরা হলাম সবাই চাকর, আবার সবাই রাজা।
সময় আর গন্ডি ফেরে, আজ যে মালিক কাল সে প্রজা।

রাজা হওয়া সবারই স্বাদ, সেটাই ভ্রান্তি সেটাই প্রমাদ।
স্বাদ পুরনে প্রতিক্ষণে, দৃষ্টি রেখে বাহির পানে
ছুটছে ধেয়ে পাগল হয়ে, মায়া আর মরীচিকার পিছে
দিনের শেষে হিসেব কষে, সবই মিথ্যে সবই মিছে।

জীবন সবার, ঘুম কাটাবার এক কারাগার
সে এক কয়েদখানা, কেবল কারাপালের আদেশ মানা
সেখানে সবই সঠিক, নেই কোন জিত নেই কোন হার।
কেবল ঘুমিয়ে থেকে স্বপ্ন দেখে, যার যার মেয়াদ করা পার।

মৃত্যু এসে অবশেষে সে ঘুম ভাঙায়
চর্ম চক্ষু বন্দ হয় আর দিব্য চক্ষু খুলে যায়।

ভাঙলে সে ঘুম ঠিক সময় মত
স্বপ্নে দেখা, সব সুখ দুঃখ আকাঙ্খা যত
সব তার শেষ হয়ে যায়।
বোঝা যায়, জীবনটা যে হায়, স্বপ্ন ছাড়া আর কিছু নয়।

মানুষের যত আকাঙ্ক্ষা যত চাওয়া
কিছুই তার যায়না পাওয়া।
শুধু ছুটেছি মিছে মিছি
সবই তার মৃগতৃষ্ণা, না পাওয়া যাতনা, সবই মায়া।
আর আমরা সবাই কায়া বিহীন ফাঁকা ছায়া।

সারা জীবন ভরি যে যা করি, ভাবি সবাই খুব লড়াইয়া
কিন্তু সবাই মোরা, খাঁচায় ভরা, জামা পরা কাকতাড়ুয়া।

Category: Meaning of Life

Write a comment